1. [email protected] : Abdur Razzak : Abdur Razzak
  2. [email protected] : admin :
  3. [email protected] : BDNewsFast :
  4. [email protected] : Abdul Jolil : Abdul Jolil
  5. [email protected] : Nazmus Sawdath : Nazmus Sawdath
  6. [email protected] : Tariqul Islam : Tariqul Islam
মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন

সাত দফা দাবি আদায়ে আন্দোলনে প্রাণ কোম্পানির এস আর গণ

  • আপডেট এর সময় : বুধবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৪৪৪ বার দেখা হয়েছে

শামীম আহমেদ রুবেল, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাস কে কেন্দ্র করে বিভিন্ন অজুহাতে সেলারি কাটা কাটি ও আটক রাখছে দেশের শীর্ষ কোম্পানি প্রাণ।

এতে করে কোম্পানিটি কতটুকু লাভবান হতে পেরেছে? তা জানা নেই। তবে খেটে খাওয়া গরিব ও অসহায় এস আর গুলোর পেটে লাথি মেরেছে এটা বলা যেতে পারে। বর্তমান পরিস্থিতিতে এটা হচ্ছে “মরার উপর খড়াড় ঘাঁ ” এর মতই। অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে মাঠে আছে এস আর গণ।

বাংলাদেশের সব চাইতে বড় কোম্পানিটি হচ্ছে প্রাণ কোম্পানি। পত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে প্রায় (১৬) লক্ষ্য পরিবার নির্ভর করে এই কোম্পানির উপরে। এস এস সি পাশ করে চাকরির পিছনে ছুটে যখন জীবন সংগ্রামে হেরে যাওয়ার পথে তখনই বেঁচে নেই এই ধরনের মার্টিং এর চাকরি বেকার যুবকেরা।

টি, এ/ডি, এ সহ প্রায় (১৪) হাজার টাকা মাসে সেলারি পায় তারা। তার মধ্য থেকে বাসা ভাড়া, রোট খরচ সব মিলিয়ে খরচ হয় (৮-১০) হাজার টা প্রায়। মাস শেষে এদিকে পরিবারের সদস্যরা ও তাকিয়ে থাকে তাদের হাতের দিকেই। (৩-৪) হাজার টাকা পরিবার কে দিতে পারে একজন এস আর। আর তাই দিয়ে ক্ষুদার সাথে যুদ্ধ করে বেঁচে আছে এই সকল এস আর দের পরিবার।

করোনার প্রাদুর্ভাবে সব চাইতে বড় প্রভাব পরেছে দেশের অর্থনীতির উপড়ে। সেই কমে গেছে সেলস ও। করোনাকে ভয় না করে কোম্পানিকে ভালোবেসে, পেটের দায়ে জীবন বাজি রেখে দোকানীদের খারাপ আচরণ কে হযম করে, ডিলারের প্যারা,কোম্পানির প্যারা সব কিছু হযম করেও কাজ করছে এই সব এস আর রা।

কোম্পানি তাদের ভাতা বাড়ানোর পরিবর্তে প্রয়োগ করেছে কঠিন থেকে কঠিনতম নানা নীতিমালা। নানা অজুহাতে কাটাকাটি করছে বেতন। সেই সাথে নূনতম (০৩)লক্ষ টাকা সেলস না হলে আটক রাখছে সেলারি। টানা দুই মাস যাবত ঘটতেছে এই রকম কিছুই। কষ্ট হয়ে পড়েছে আজ বেঁচে থাকা এই সকল মানুষের। আজ তারা সাত দফা দাবিতে আন্দোলন করেছে প্রায় শারা দেশেই।

তাদের সাত দফা গুলো হলঃ

(১) বিগত মাসের হেন্ডাব বেতন দিতে হবে।

(২) বর্তমান বেতন পলিসি বাতিল করতে হবে।

(৩) একই পন্য ভিন্ন গ্রুপে দেওয়া যাবে না।

(৪) lom হাজিরার জন্য চালু রাখতে হবে।

(৫) প্রতি বছর বেতন বৃদ্ধির নিয়ম চালো রাখতে হবে।

(৬) সেচ্ছায় চাকরি ছেড়ে দিলে প্রভিডেন্ট ফান্ড এর টাকা ১০০%দিতে হবে। এবং
(৭) কোম্পানির যত সফটওয়্যার আছে ঠিক না হওয়া পর্যন্ত হাজিরা ১০০% চালু রাখতে হবে।

এস আর মোঃ মোজাম্মেল হক জানান, যে পাওয়ার গ্রুপ এ এমন কোনো প্রডাক্ট নেই যে প্রডাক্ট টি অন্য কোনো গ্রুপ এ নেই। তা ছাড়া এই গ্রপে কোনো হিট প্রোডাক্ট ও নেই, এমন কি এক লিঃ ও হাফ লিঃ কোনো প্রোডাক্ট নেই। এই গ্রুপ থেকে কোনো এস আর কি ভাবে টার্গেট পূরণ করবে? দেশের অনেক ডিলার পয়েন্ট রয়েছে যে গুলোতে (১-১.৫) লক্ষ্য টাকা সেলস করাই কষ্টের ব্যপার। সব দিক বিবেচনা করে পাওয়ার গ্রুপে নতুন হিট প্রডাক্ট দেওয়ার জন্য দাবি জানান। সেই সাথে এক লিঃ এবং হাফ লিঃ প্রডাক্ট দেওয়ার দাবি জানান এবং সাবিক দিক বিবেচনা করে এই সাত দফা মেনে নেওয়ার দাবি জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করে সকলের মাঝে ছড়িয়ে দিন

এই ক্যাটাগরির আরো কিছু খবর